১ম – ৬ষ্ঠ শ্রেণির কুরআন ও এ্যারাবিক পরীক্ষার শিডিউল (১৩ জুলাই ২০২০)

আসসালামুআলাইকুম,

আগামীকাল (১৩/৭/২০২০) অনুষ্ঠিতব্য ১ম-৬ষ্ঠ শ্রেণির (ফুল টাইম হিফয ও নাজেরা ব্যতীত) কুরআন ও এ্যারাবিক পরীক্ষার বিস্তারিত শিডিউল নিচের লিংক-এ পাওয়া যাবে ইন-শা-আল্লাহ

https://bit.ly/2DD7QgJ

মা আসসালামা,

এস.সি.ডি এ্যাডমিন।

কেজি কুরআন (পরীক্ষক ও শিক্ষার্থীদের নাম) ১২ জুলাই ২০২০

কেজি-কোরআন ১২/০৭/২০২০

 হাসনাইন উস্তাদ নিবেন কেজির ১০ জন ছেলে

Al-Yasa Bin Shahid

Sadaqat Mutasim Ali

Muhammad Ibn Sajjad

Ahnaf Sabit

Md. Farhan

Abdullah Bin Fadl

Saiful Islam (Mahad)

Saad Abdullah Bin Yousuf

Muaz Bin Sharif

Md. Saif Al-Din (Shabib)

 হাসান মাহমুদ উস্তাদ নিবেন কেজির ০৭ জন ছেলে

Yeahia Omar Faruk

Saarim Faiyad

Nusair

Zayed Tanvir

Abdullah Raiyan

Sheikh Ajmain Azim

Muhammad Usman

জান্নাত উস্তাজা নিবেন ১৫ জন মেয়ে (মর্নিং শিফট-এর সব মেয়েদের)

কেজি ও প্রথম শ্রেণির বাসায় পরীক্ষা গ্রহণ সংক্রান্ত নীতিমালা:

কেজি ও প্রথম শ্রেণির অভিভাবকগণ অবশ্যই নিচের বিষয়গুলো খেয়াল রাখবেন, ইন-শা-আল্লাহ।

  • রুটিন অনুযায়ী প্রশ্ন খাম থেকে বের করে সময় অনুযায়ী পরীক্ষা নিবেন।
  • সব প্রশ্ন আগে দেখবেন না এবং পরীক্ষার্থীকে দেখতে দিবেন না। পরীক্ষা দেওয়ার সময় একটা একটা করে প্রশ্ন বুঝিয়ে দিবেন। একটা লেখা শেষ হলে পরেরটা বুঝিয়ে দিবেন। শুধু প্রশ্ন বুঝিয়ে দিবেন, উত্তরটা সে নিজে একা একা লিখবে। উত্তর লিখতে কোনোরকম সাহায্য করা যাবে না।
  • পরীক্ষার্থী কোনো প্রশ্নের উত্তর লিখতে না পারলে, কোনো কথা, কাজ বা হিন্ট দেয়ার মাধ্যমে উত্তর বলে দেয়া যাবে না বা ধমকের সুরেও বলা যাবে না। যেমন, “গতকালকে বিকালে খাতায় তোমাকে না এটা করালাম?” এর মাধ্যমে প্রকারন্তরে আমরা শিক্ষার্থীকে উত্তরটাই বলে দিচ্ছি। সব সময় মনে রাখবেন, পরীক্ষার্থীরা পরীক্ষার হলে কোনো বিষয় ভুলে গেলে পরবর্তিতে সেই ভুল ধরিয়ে দিলে ভুলে যাওয়া বিষয়টি দীর্ঘ সময় মনে থাকার সম্ভাবনা বেশি। আর আমাদের স্কুলের উদ্দেশ্য শিক্ষার্থীকে প্রকৃত শিক্ষায় শিক্ষিত করা, শুধুমাত্র যে কোনো উপায়ে নাম্বার পাওয়া নয়। আর বিষয়টি তাকওয়ারও পরিপন্থি।
  • পরীক্ষা শেষ হলে পরীক্ষার খাতা একই খামে ভরে রেখে দিবেন। সব পরীক্ষা শেষ হওয়ার পর আমরা দিন/তারিখ ঘোষনা দিয়ে পরীক্ষার খাতাগুলো সংগ্রহ করবো, ইন-শা-আল্লাহ।

অনুরোধক্রমে,

অধ্যক্ষ
এস.সি.ডি

ইসলাম শিক্ষা সিলেবাস (ফুল-টাইম হিফয শাখার ছাত্রদের জন্য)

১ম শ্রেণির ফুল টাইম হিফয (নাজেরা ছাত্রদের জন্য)

(১ম শ্রেণির পরীক্ষা সব মৌখিক হবে)

  • রাতের আমল কী কী?
    • ৩৩ বার সুবহানাল্লাহ, ৩৩ বার আলহামদুলিল্লাহ, ৩৪ বার আল্লাহু আকবার
    • সূরা ইখলাস, ফালাক, নাস ৩ বার করে
    • আয়াতুল কুরসী, সূরা বাকারার শেষ ২ আয়াত
    • আমানার রাসুলু…
    • ১০০ বার আস্তাগফিরুল্লাহ
    • ঘুমানের আগে ঘুমের দোয়া
  • সকাল বিকাল এর ৩ টা দোয়া
  • ঘরে প্রবেশ ও বের হবার দোয়া
  • খাবারের আগে ও পরের দোয়া
  • ঘুমাতে যাওয়ার আগে ও উঠার দোয়া।
  • করোনা এর সময় কী করণীয়?
  • কঠিন রোগ থেকে রক্ষা পাবার দোয়া।

২য় থেকে ৬ষ্ঠ শ্রেণি পর্যন্ত

(ফুল-টাইম হিফয-এর নাজেরা ও হিফয ছাত্রদের জন্য)

১। রব মানে কী?

২. সুন্দর জীবন পাবার শর্ত কী?

৩. ইসলাম মানে ‍কি? এর স্তম্ভ কয়টি, কী কী?

৪. দ্বীন মানে কী?

৫. ঈমান কী? এর স্তম্ভ কয়টি, কী কী?

৬. ইসলামের ১ম স্তম্ভ কোনটি লেখ? এর অর্থ লেখ।

৭. আল্লাহর অবস্থান কোথায়?

৮. শিংগায় ফুঁ দেয়ার কাজে কোন ফেরেশতা নিয়োজিত?

৯. কয়েকজন ফেরেশতার নাম ও কাজ লিখ ।

১০.কাফির ও মুসলিমের মধ্যে কোন কাজটি পার্থক্য এনে দেয় । অর্থাৎ কোন আমলের মাধ্যমে এ পার্থক্য করা যাবে ।

১১. কুরআন নাযিল হয় কত বছর ধরে?

১২. কুরআনে মোট কয়টি সূরা ও আয়াত রয়েছে?

১৩. আসমানী কিতাব কী? প্রধান ৪টি আসমানী কিতাবের নাম এবং তা কোন কোন নবীর প্রতি নাযিল হয়েছে তা লিখ ।

১৪. সর্বোচ্চ সাফল্য কোনটি?

১৫. আল্লাহ ও তাঁর রাসূলের কথা মেনে চললে কী লাভ করবো?

১৬. তাওহীদ কী?

১৭. তাকওয়া কী? মুত্তাকী কে?

১৮. যা কোন চোখ দেখেনি, যা কোন কান শোনেনি, যা কোন অন্তর অনুভব করেনি এসব জিনিস আমরা কোথায় পাব?

১৯. জান্নাতের বর্ণনা দাও ।

২০. অযু শুরুর শর্ত কী?

২১. অযু শেষের দোয়া কী? এর অর্থ কী?

২২. অযুর ধারাবাহিকতা বলতে কী বুঝ?

২৩. আল্লাহর অবস্থান কোথায়?

২৪. আল্লাহ কি শুধুই রহমানুর রাহীম অর্থাৎ দয়ালু নাকি তিনি কঠিন আযাব দিতেও পারেন? কেন এবং কাদের তিনি শাস্তি দিবেন ।

২৫. আল্লাহর আযাব থেকে বাঁচার উপায় কী?


৫ম থেকে ৬ষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থীরা নিচের টপিকগুলো অতিরিক্ত পড়বে।

যেমন জান্নাত জাহান্নামের বর্ণনা, কিয়ামতের বর্ণনা, সূরা আল-কাউসার ও আল-আসর।

বাসায় পরীক্ষা গ্রহণ সংক্রান্ত নীতিমালা

এস.সি.ডি (অর্ধ-বার্ষিক পরীক্ষা ২০২০)

বাসায় পরীক্ষা গ্রহণ সংক্রান্ত নীতিমালা

কেজি ও ১ম শ্রেণি

  • কেজি ও ১ম শ্রেণির পরীক্ষার্থীদের প্রশ্ন ও উত্তরপত্র শিক্ষার্থীদের বাসায় পৌছে দেয়ার ব্যবস্থা করা হবে। 
  • অভিভাবকগন পরীক্ষার নির্দিষ্ট রুটিন মেনে শুধুমাত্র নির্দিষ্ট পরীক্ষার প্রশ্ন বের করে পরীক্ষা নিবেন।
  • পরীক্ষা শেষ হলে যত্ন করে খাতাগুলো বাসায় রেখে দিবেন, সব পরীক্ষা শেষ হলে আমরা সবগুলো খাতা একবারে বাসা থেকে সংগ্রহ করব ইন-শা-আল্লাহ।

২য় থেকে ১০ম শ্রেণী

  • ২য় শ্রেণি থেকে ১০ম শ্রেণির পরীক্ষার্থীদের অভিভাবকগণ দিস্তা কাগজ কিনে পরীক্ষার খাতার মতো বানিয়ে নিবেন। 
  • ৩য় শ্রেণি পর্যন্ত রুল করা কাগজে (বাংলা, ইংরেজি ও অংক এই তিনটি পরীক্ষাই বাংলা খাতার মত রুল করা খাতায় নিতে হবে), ৪র্থ শ্রেণি থেকে সাদা কাগজে লিখবে। সবগুলো বিষয়ের পরীক্ষার জন্য আগে থেকেই খাতা বানিয়ে রাখবেন। অতিরিক্ত কাগজ প্রয়োজন হলে, তা যেন হাতের কাছে থাকে খেয়াল রাখবেন।
  • উত্তরপত্রে শুরুতে অর্থ্যাৎ প্রথম পৃষ্ঠায় অবশ্যই এই তথ্যগুলো থাকতে হবে। এই তথ্যগুলো লেখার পর আড়াআড়ি (Horizontally) একটি দাগ দিতে হবে। তার নিচ থেকে উত্তর লেখা শুরু করতে হবে।
  • পরীক্ষার্থী যে স্থানে পরীক্ষা দিবে; সে স্থানে তার কোনো বই, খাতা বা নোট থাকবে না। পরীক্ষা গ্রহণের স্থান আগেই নির্দিষ্ট করে প্রস্তুত রাখবেন। মনোযোগের ব্যাঘাত ঘটায় আশেপাশে এমন কোনো কিছু যেন না থাকে। 
  • প্রতিটি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র স্কুলের ওয়েবসাইটে দেওয়া হবে। পরীক্ষার দিন সকাল ৮:৩০ এ www.scdbd.org/hyxm20 ঠিকানায় প্রতিটি পরীক্ষার প্রশ্ন প্রকাশ করা হবে।। যারা একান্তই ওয়েবসাইট থেকে প্রশ্ন সংগ্রহ করতে পারবেন না, তারা স্কুলের নাম্বারে যোগাযোগ করে শিক্ষার্থীর নাম ও অভিভাবকের নাম জানিয়ে রাখবেন।
  • ২য়-১০ম শ্রেণির পরীক্ষার্থীরা যে ডিভাইস (কম্পিউটার/ল্যাপটপ/ট্যাব/মোবাইল) থেকে প্রশ্নপত্র দেখে পরীক্ষা দিবে, সেখানে যেন  ইন্টারনেট সংযোগ বন্ধ থাকে এবং কম্পিউটার/ল্যাপটপ যেন অটো-স্লিপ মোডে না থাকে – তা আগে থেকেই নিশ্চিত থাকবেন। বাসায় প্রিন্টার থাকলে প্রশ্ন প্রিন্ট করে দেয়া যাবে।
  • পরীক্ষার ঠিক ১৫ মিনিট পূর্বে উত্তরপত্র পরীক্ষার্থীর হাতে দিবেন এবং ঠিক ৯:০০ টায় প্রশ্নপত্র হাতে দিবেন অথবা ডিভাইসের স্ক্রিনে শিক্ষার্থীর সামনে ওপেন করে রাখবেন। 

পরীক্ষার সময় করণীয়

  • বাসার অন্য কোনো সদস্য যেন পরীক্ষাগ্রহণের স্থানে উপস্থিত না থাকে তা নিশ্চিত করবেন। একজন অভিভাবক পরীক্ষক হিসেবে নির্দিষ্ট দূরত্ব বজায় রেখে সেখানে উপস্থিত থাকবেন।
  • প্রয়োজনে পরীক্ষার্থীকে প্রশ্নপত্র বুঝিয়ে দিতে পারেন, তবে এমন কিছু বলে দেওয়া যাবে না – যা উত্তর বলে দেওয়ার সামিল। অর্থাৎ পরীক্ষার্থী না পারলেও তার ভালোর জন্যেই তাকে বলে দিয়ে সাহায্য করা যাবে না। কোনোধরনের হিন্ট দেয়া থেকেও বিরত থাকতে হবে।
  • প্রশ্নপত্রে উল্লেখিত সময়ের মাঝেই পরীক্ষা শেষ করতে হবে। এর মাঝে লেখা শেষ না হলেও অতিরিক্ত সময় দিবেন না। এক্ষেত্রে আমরা আশা করছি প্রত্যেকে তাকওয়া অবলম্বন করবেন।
  • নেটে সমস্যা/লোডশেডিং /যান্ত্রিক গোলযোগ ইত্যাদি কারণে প্রশ্নপত্র ডাউনলোড করতে সমস্যা হলে, যতক্ষণ পর পরীক্ষা শুরু করবেন, ঠিক তখন থেকেই হিসাব শুরু হবে। এক্ষেত্রে প্রশ্নপত্রে উল্লেখিত সময়ের মাঝে শেষ করতে হবে। উদাহরনস্বরূপ: পরীক্ষার সময় ২ ঘন্টা। কোনো কারণে পরীক্ষা ৯:০০টার পরিবর্তে ৯:৪০ এ শুরু করলে অবশ্যই সেই পরীক্ষাটি ১১:৪০ এর মধ্যে শেষ করতে হবে।

উদাহরণস্বরূপ: যদি ৯-৯.৩০ পর্যন্ত নৈর্ব্যক্তিক আর ৯.৩০ থেকে সৃজনশীল শুরু করার কথা হয়, তাহলে নৈর্ব্যক্তিক আগে শেষ হয়ে গেলেও ঠিক ৯.৩০-এ সৃজনশীল শুরু করতে হবে

  • প্রশ্নে উল্লেখিত সময়ের মাঝে নৈর্ব্যক্তিক পরীক্ষা শেষ করতে হবে। সময় শেষ হওয়ার আগে নৈর্ব্যক্তিক উত্তর দেওয়া শেষ হয়ে গেলেও পরবর্তী সৃজনশীল পরীক্ষা নির্ধারিত সময়ে শুরু করতে হবে।
  • রচনামূলক প্রশ্নের উত্তর লেখার পর পৃথক একটি পৃষ্ঠা থেকে নৈর্ব্যক্তিক-এর উত্তর লেখা শুরু করতে হবে। যেহেতু এবার বৃত্ত ভরাট করা যাচ্ছে না, তাই উত্তর দেয়ার জন্য প্রথমে প্রশ্নের নাম্বার এবং সঠিক উত্তরের সিরিয়াল লিখলেই চলবে ইন-শা-আল্লাহ। যেমন:

পরীক্ষা-পরবর্তী করণীয়

  • পরীক্ষা গ্রহণের পর উত্তরপত্রের ছবি তুলে অথবা স্ক্যান করে ই-মেইলে এটাচ করে scdexams@gmail.com-এ পাঠাবেন। কিভাবে করবেন তা দেখতে এই ভিডিওটি দেখে নিতে পারেন Video link: https://youtu.be/6nvpm3nx-BY
  • যে দিন যে বিষয়ের পরীক্ষা হবে, ঐ দিন রাত ১২ টার মধ্যে উত্তরপত্র পাঠাতে হবে।
  • মূল্যায়নের সুবিধার্থে উত্তরপত্রের ছবি তুলে পাঠানোর সময় খেয়াল রাখবেন যেন সব লেখা স্পষ্ট বোঝা যায়। কম আলোতে ছবি তুলবেন না বা ছবি তোলার সময় হাতের বা মোবাইলের ছায়া যেন উত্তরপত্রের উপর না পড়ে সেদিকে সতর্ক দৃষ্টি রাখবেন।
  • খেয়াল রাখবেন একই উত্তরের ছবি একাধিকবার যেন না পাঠানো হয়।
  • ছবি আপলোড করার সময় অবশ্যই ধারাবাহিকতা বজায় রাখবেন। অভিভাবক আগে থেকেই উত্তরপত্রে পৃষ্ঠা নাম্বারিং করবেন (খাতার মাঝ বরাবর নিচে) এবং সে অনুযায়ী পাঠাবেন।
  • উত্তরপত্র ছবি তুলে ই-মেইল করার সময় কোনো পৃষ্ঠা ভুলে বাদ পড়ে গেলে পরবর্তীতে তা গ্রহণ করা হবে না।

যে কোনো প্রয়োজনে কল করুন: 01705-679603,

WhatsApp: 01700 714 116

অধ্যক্ষ

স্কুল ফর কমিউনিটি ডেভেলপমেন্ট

Half-yearly exam of Hifz and Najera Students

Assalamualaikum,

All full-time “Hifz and Najera” students will attend only the following exams in the upcoming Half-yearly exam as per published routine:

  1. Islam
  2. Bengali
  3. English
  4. Math

All Part-time “Hifz & Najera” students will attend all the subjects in the upcoming Half-yearly exam.

  • Islam syllabus (Full-time Hifz & Najera Boys): The topics taught upto 15 March 2020.
  • Islam syllabus (Full-time Hifz & Najera Girls): As per published syllabus of school.

Arabic, Hifz and Najera exam of full-time & Part-time Hifz & Najera students will be held after the Half-yearly exam, in-sha-Alla.

Ma Assalama,

SCD Admin.

অর্ধ-বার্ষিক পরীক্ষা ২০২০

আসসালামুআলাইকুম,

এসসিডি’র সকল অভিভাবক এবং শিক্ষার্থীর অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে যে, বর্তমান করোনা পরিস্থিতি, সরকারি নির্দেশনা ইত্যাদি বিবেচনা করে স্কুলের অন-ক্যাম্পাস কার্যক্রম শুরু করার কোনো নির্দিষ্ট সময় নির্ধারণ করা যাচ্ছে না। 

আপনারা সবাই অবগত আছেন, রমাদান থেকেই স্কুলের ওস্তাজ/ওস্তাজারা শিক্ষার্থীদের ফোনের মাধ্যমে খোঁজখবর নিচ্ছেন এবং কিছু কিছু ক্ষেত্রে Whatsapp-এর  মাধ্যমে পড়া দেখা ও ফিডব্যাক প্রদান করছেন।

এছাড়া ৮ম, ৯ম ও ১০ম শ্রেণির অনলাইন ক্লাস চালু হয়েছে এবং ধীরে ধীরে ৫ম শ্রেণির ক্লাস কীভাবে অনলাইনের মাধ্যমে শুরু করা যায় তা বিবেচনাধীন রয়েছে।

বর্তমান পরিস্থিতিতে বিশেষ পদ্ধতিতে অর্ধ-বার্ষিক পরীক্ষার (কেজি – ১০ম শ্রেণি) আয়োজনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। যেহেতু নার্সারির পরীক্ষা কিছু বিশেষ ব্যবস্থাপনায় এবং ওস্তাজ/ওস্তাজাদের প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে আয়োজন করতে হয়, তাই পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার পূর্ব পর্যন্ত নার্সারির কোনো পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে না। নার্সারির শিক্ষার্থীরা স্কুলের নির্দেশনা অনুযায়ী পড়াশোনা চালিয়ে যাবে। 

বোর্ড পরীক্ষা ব্যতীত বাকি ক্লাসগুলোর বার্ষিক পরীক্ষার জন্য পরবর্তীতে রিভাইসড একটি সিলেবাস প্রনয়ণ করা হবে ইন-শা-আল্লাহ। অর্ধবার্ষিক পরীক্ষার উদ্দেশ্য, সিলেবাস, পরীক্ষার স্থান ইত্যাদি বিষয় নিচে বিস্তারিত উল্লেখ করা হলো:

অর্ধবার্ষিক পরীক্ষার উদ্দেশ্য ও পদ্ধতি

১) বিশেষ পরিস্থিতিতে অর্ধবার্ষিক পরীক্ষা আয়োজনের মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে শিক্ষার্থীদের পড়াশোনার সাথে যুক্ত রাখা। বর্তমান এই অভূতপূর্ব পরিস্থিতিতে আমাদের প্রায় সবার ব্যক্তিগত ও সমষ্টিগত, সামাজিক ও অর্থনৈতিক জীবনাচরণে ব্যাপক পরিবর্তন এসেছে। পাশাপাশি পারিবারিক দৈনন্দিন রুটিনেও বিশাল পরিবর্তন এসেছে। 

এমতাবস্থায় আমরা চাচ্ছি শিক্ষার্থীরা স্কুল তথা নিয়মিত পড়াশোনার কার্যক্রমের সাথে সম্পৃক্ত থাকবে, যে কোনো উপায়ে সিলেবাস শেষ করা আমাদের লক্ষ্য নয়।

২) স্কুল খোলার পর থেকে রমাদান পর্যন্ত স্কুলে এবং ওয়েবসাইটের মাধ্যমে যতটুকু পড়া দেয়া হয়েছে, তার উপরই পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। 

৩) পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে শিক্ষার্থীদের যার যার বাসায়। অভিভাবকগণ পরীক্ষা গ্রহণের দায়িত্বে থাকবেন। পরীক্ষা আয়োজনে প্রত্যেক অভিভাবক সর্বোচ্চ সতর্কতা এবং নিয়মানুবর্তিতা অবলম্বন করবেন, ইন-শা-আল্লাহ। পরীক্ষার্থী যেন সততার সাথে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে তা নিশ্চিত করবেন।

৪) প্রতিটি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র (পিডিএফ ফরম্যাটে) উক্ত পরীক্ষার দিন সকাল ৮:৩০ মিনিটে স্কুলের ওয়েবসাইটে পাবলিশ করা হবে। ওয়েব লিংক পরবর্তিতে জানিয়ে দেয়া হবে, ইন-শা-আল্লাহ।  

যারা একান্তই ওয়েবসাইট থেকে প্রশ্ন সংগ্রহ করতে পারবেন না, তারা স্কুলের নাম্বারে যোগাযোগ করে শিক্ষার্থীর নাম ও অভিভাবকের নাম জানিয়ে রাখবেন। আমরা বিকল্প ব্যবস্থার চেষ্টা করব ইন-শা-আল্লাহ। তবে আমরা চাইব আপনারা বাসায় থেকেই পরীক্ষার পুরো কার্যক্রম পরিচালনা করবেন।

পরীক্ষা নেয়ার বিস্তারিত পদ্ধতি পরবর্তিতে জানানো হবে ইন-শা-আল্লাহ।


Half Yearly Examination Routine- 2020

Exam starts at 9:00AM

উপরের রুটিনে উল্লিখিত তারিখসমূহে কেজি’র লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। লিখিত পরীক্ষা শেষ হওয়ার পর মৌখিক পরীক্ষা নিচের রুটিন অনুযায়ী অনুষ্ঠিত হবে।

কেজির মৌখিক পরীক্ষার রুটিন

১৯.৭.২০ – বাংলা (মর্নিং)

২০.৭.২০ – বাংলা (ডে)

২১.৭.২০ – ইংরেজি (মর্নিং)

২২.৭.২০ – ইংরেজি (ডে)

২৩.৭.২০ – গণিত (মর্নিং + ডে)

পরীক্ষার সময়:: সকাল ৯.০০ – দুপুর ১.০০ টা


জরুরী তারিখসমূহ:

  • পরীক্ষা শুরুর তারিখ: ১২ জুলাই ২০২০
  • রেজাল্ট প্রকাশের সম্ভাব্য তারিখ: ২০ আগস্ট ২০২০

বর্তমান এই ক্রান্তিকালে বিশেষ পদ্ধতিতে পরীক্ষা আয়োজনে সকল অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে বিশেষ সহযোগিতা কামনা করছি। আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তা’য়ালা যেন আমাদের শিক্ষার্থীদের আবার নিয়মিত স্কুলে অংশগ্রহণ করার তৌফিক দান করেন এবং এই মহামারির বিপদ থেকে আমাদের সবাইকে হেফাজত করেন, আমীন।

যে কোনো প্রয়োজনে সাহায্যের জন্য কল করুন: 01705-679603

অধ্যক্ষ

স্কুল ফর কমিউনিটি ডেভেলপমেন্ট

তিলাওয়াত প্রতিযোগিতা

(তারাতিল রমাদান)

কিভাবে অংশগ্রহন করবেন?

উস্তাজ আরিফুর রহমান

আপনার বাড়িতে থাকুন এবং এখন ইকরা স্যাটেলাইট চ্যানেলে কুরআন (তারাতিল রমাদান) প্রতিযোগিতায় প্রত্যক্ষভাবে অংশ নিন।

যা রমজান মাসের প্রতিদিন মক্কার সময়  রাত ১১:৩০  শেখ ডাঃ আয়মান সওয়েদের সাথে সরাসরি তত্ত্বাবধানে এবং ইসমাইল আল শিবলির উপস্থাপনে সরাসরি প্রচারিত হবে।

🌹🌹 নগদ পুরস্কার জিতুন🌹🌹

প্রতিদিন ৩ জন করে বিজয়ী বাছাই করা হবে প্রত্যেক পর্ব থেকে পুরো রমজান মাস জুড়ে।

প্রথম বিজয়ী, পবিত্র রমজান মাসের শেষে, চূড়ান্ত প্রতিযোগিতার জন্য বাছাইকৃত হবে এবং বড় পুরষ্কার জেতার যোগ্যতা অর্জন করবে।

প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে, নিম্নলিখিত শর্তাবলী এবং নির্দেশাবলী অনুসরণ করুন:

  •  আপনার মোবাইল দ্বারা উচ্চ মানের এবং পরিষ্কার ভয়েস সহ চিত্রিত কুরআন তেলাওয়াতের একটি ভিডিও ক্লিপ প্রেরণ করুন।
  • আবৃত্তি শুরুর আগে আপনার নাম এবং দেশ উল্লেখ করুন (আরবীতে)
  •  পবিত্র কুরআন তিলাওয়াত করার জন্য উপযুক্ত সূরা/আয়াতসমূহ বেছে নিন, যাতে দৈর্ঘ্য ২-৩ মিনিটের মধ্যে থাকে।
  • আপনি মুসহাফ না দেখে তিলাওয়াত করবেন।
  • যে কোনও জায়গা এবং যে কোনও দেশ থেকে পাঠাতে পারবেন।
  • সমস্ত এন্ট্রিগুলি থেকে শেখ ডাঃ আয়মান স্যুইদ এর সভাপতিত্বে বিশেষায়িত বোর্ডের মাধ্যমে প্রাথমিক মূল্যায়ন হবে, যাতে সরাসরি পর্বে প্রদর্শিত হওয়ার জন্য সেরা এন্ট্রিগুলি বাছাই করা হয় এবং প্রতিযোগিতায় প্রবেশ করতে পারে।

বিজয়ীদের নিম্নলিখিত মানদণ্ড অনুসারে বাছাই করা হবে:

  • কোনপ্রকার ভুল ছাড়া বিশুদ্ধভাবে তিলাওয়াত
  • সঠিক মাখরাজসহ
  • তাজউইদের নিয়মের প্রয়োগ
  • আবৃত্তিতে কণ্ঠের সৌন্দর্য

বিজয়ীর সাথে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে যোগাযোগ করা হবে, যেখান থেকে ক্লিপটি পাঠানো হয়েছে, পুরষ্কার গ্রহণের জন্য।

যে কোনও সময় নিম্নলিখিত Whatsapp-এ ক্লিপগুলি প্রেরণ করুন (00966539440078) নাম এবং দেশের নাম সহ।

এন্ট্রি গ্রহণের সময়সীমা রমজান মাসের ২৪ তারিখ (সৌদি আরবের হিসাবে) বা মে মাসের ১৭ তারিখ

রমাদান ১৪৪১-এ বাসায় হিফজ-এর পড়া সংক্রান্ত নির্দেশনা

আসসালামুআলাইকুম,

রমাদান এর মধ্যে হিফজ বিভাগের শিক্ষার্থীদের প্রতি বাসায় পড়ার কিছু দিক নির্দেশনা:

১) হিফজ বিভাগ: প্রতিদিন পেছনের মুখস্ত পড়া (অর্ধেক পারা করে) রিভিশন দিবে এবং ১ পারা রিডিং পড়বে।
২) নাজেরা বিভাগ: প্রতিদিন ১০ পৃষ্ঠা করে পুরাতন পড়া রিডিং পড়বে।
৩) আরবি: ক্লাসে যা পড়ানো হয়েছে তা রিভিশন দিবে।

অভিভাবকদের উপরোক্ত বিষয় নিশ্চিত করে দৈনিক তদারকিপত্রের একটি নমুনা তৈরি করে তাতে স্বাক্ষর করার জন্য অনুরোধ করা যাচ্ছে।

উস্তাদ আব্দুল মাতিন
বিভাগীয় প্রধান,
হিফজ বিভাগ, এস.সি.ডি