Class Test (CT), অর্ধ-বার্ষিক ও বার্ষিক পরীক্ষা সংক্রান্ত নোটিস

১। নার্সারিতে অর্ধ-বার্ষিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয় না, স্কুলের বার্ষিক পরীক্ষার সাথে নার্সারির প্রথম আনুষ্ঠানিক পরীক্ষা শুরু হয়। তবে বার্ষিক-এর পূর্বে কিছু প্রস্তুতিমূলক পরীক্ষা নেওয়া হয়ে থাকে, যা বার্ষিক পরীক্ষার সাথে যোগ হয় না।

২। নার্সারি ও কেজি’তে কোনো CT নেওয়া হয় না।

৩। কেজি থেকে ১০ম শ্রেণী পর্যন্ত ২টি টার্ম/সাময়িকী (অর্ধ-বার্ষিক ও বার্ষিক) পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। তবে ৫ম, ৮ম, ১০ম শ্রেণীর পরীক্ষা পি.ই.সি/জে.এস.সি এবং অন্যান্য বোর্ড পরীক্ষার সাথে সঙ্গতি রেখে মডেল টেস্ট আকারে নেয়া হয়।

৪। বার্ষিক ও অর্ধ-বার্ষিক পরীক্ষায় সর্বমোট নাম্বার নিম্নোক্তভাবে বন্টিত হয়:

ক. CT – ১০%

খ. অর্ধ-বার্ষিক ও বার্ষিক – ৯০%

# প্রতিটি বিষয়ের পূর্ণমান ৫০ বা ১০০ তে প্রকাশ করা হয়

৫। প্রতিটি টার্ম পরীক্ষার পূর্বে ১টি করে CT অনুষ্ঠিত হয়।

৬। CT সাধারনত ক্লাসে যতটুকু সিলেবাস কভার করা হয়েছে তার উপর হয়ে থাকে। CT চলাকালীন অন্যান্য সকল ক্লাস স্বাভাবিকভাবেই চলবে এবং CT ব্যাতিত অন্যান্য ক্লাসে নতুন লেসন পড়ানো হলেও নতুন কোনো বাড়ির কাজ দেওয়া হবে না। আগে যা পড়ানো হয়েছে তা রিভিশন দেওয়া হবে।।

৭। নির্ধারিত বিষয়ের CT ঐ দিন রুটিনে নির্ধারিত ক্লাস টাইমের মধ্যেই হয়ে থাকে।

৮। CT নাম্বার যেহেতু অর্ধ-বার্ষিক ও বার্ষিক পরীক্ষার সাথে যোগ হয়, তাই CT’তে অংশগ্রহণের ব্যপারে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে।

৯। অর্ধ-বার্ষিক ও বার্ষিক পরীক্ষা সময়মত দিতে না পারলে পরবর্তিতে তা পুনরায় (Retake) দেওয়া যায় না। একইভাবে CT দিতে না পারলেও তা পুনরায় (Retake) দেওয়া যায় না। তবে বিশেষ কোনো কারন থাকলে তা উল্লেখপূর্বক স্কুল কর্তৃপক্ষের বরাবর আবেদন করতে হয়। উক্ত আবেদন মঞ্জুর করার ব্যপারে স্কুল কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত বলে গণ্য হয়।

মা আসসালামাহ,

এস.সি.ডি এ্যাডমিন