abir

ঈদুল আযহা কার্যক্রম – ১৪৪৩

 اَلسَّلَامُ عَلَيْكُمْ وَرَحْمَةُ ٱللَّهِ وَبَرَكاتُهُ

এস সি ডি স্কুলের শিক্ষার্থীদের জিলহজ্জ মাসে ইলম চর্চা ও ইবাদতের প্রতি আগ্রহী করার লক্ষ্যে শ্রেণিভিত্তিক কিছু এসাইনমেন্ট শীট প্রস্তুত করা হয়েছে। আমাদের লক্ষ্য শিক্ষার্থীরা এই জিলহজ্জ মাসের ৫ তারিখ থেকে অল্প অল্প করে দ্বীনের কিছু বিষয়ে জ্ঞান অর্জনের পাশাপাশি তাদাব্বুর বা চিন্তা-ফিকির করবে।

মা আসসালামাহ,
অধ্যক্ষ
এস সি ডি

দিকনির্দেশনা

  • শিক্ষার্থীরা নির্ধারিত ক্লাস অনুযায়ী এ্যাসাইনমেন্ট-এর পিডিএফ ফাইলটি ডাউনলোড করে প্রিন্ট করে নিতে পারেন অথবা ৫ জুলাই ২০২২-এর মধ্যে স্কুল থেকে প্রিন্টেড কপি সংগ্রহ করতে পারেন ইন-শা-আল্লাহ। 
  • শিক্ষার্থীরা নির্ধারিত এ্যাসাইনমেন্ট-এর প্রিন্টেড কপির মধ্যেই লিখবেন। প্রয়োজনে আলাদা পৃষ্ঠা সংযুক্ত করা যাবে।
  • শিক্ষার্থীদের এ্যাসাইনমেন্ট প্রস্তুতের ক্ষেত্রে বাবা-মা / অভিভাবক পরোক্ষভাবে সহযোগিতা করতে পারবেন। যেমন, কোনো বিষয় সম্পর্কে শিক্ষার্থীদের সঠিক জ্ঞান না থাকলে তাদেরকে বিষয়টি সম্পর্কে আল-কুরআন, নির্ভরযোগ্য তাফসির বা কিতাব অথবা সহীহ হাদিস থেকে শিখিয়ে দেওয়া যাবে, যাতে করে শিক্ষার্থী নিজেরাই উত্তরটি লিখতে পারেন। তবে সরাসরি উত্তর বলে দেওয়া থেকে বিরত থাকার জন্য বিশেষভাবে সকলকে বিনীত অনুরোধ করছি। এ্যাসাইনমেন্ট তৈরিতে যেকোনো ধরনের অসদুপায় অবলম্বন করা বা অসুস্থ প্রতিযোগিতমূলক মানসিকতা সম্পূর্ণভাবে পরিহার করতে হবে। এর মূল উদ্দেশ্য হতে হবে জ্ঞান অর্জনের মাধ্যমে আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জন, ইন-শা-আল্লাহ।

এ্যাসাইনমেন্ট-এর হার্ড কপি আগামী ২০ জুলাই ২০২২-এর মধ্যে স্কুলে সাবমিট করবেন ইন-শা-আল্লাহ।

এ্যাসাইনমেন্ট/ঈদুল আযহা এ্যাকটিভিটি:

শিক্ষার্থীদের নির্দেশনাবলী 

স্কুল ফর কমিউনিটি ডেভেলপমেন্ট
পরীক্ষা চলাকালীন শিক্ষার্থীদের জন্য নির্দেশনাবলী
(অর্ধ-বার্ষিক পরীক্ষা ২০২২) 

১। পরীক্ষা শুরুর হওয়ার ২০ মিনিট পূর্বে পরীক্ষার্থীরা স্কুলে উপস্থিত থাকবে। অনিবার্য কারণবশত কোনো পরীক্ষার্থী নির্ধারিত সময়ের পর স্কুলে উপস্থিত হলে অফিসে তার নাম, শ্রেণি, প্রবেশের সময় এবং বিলম্বের কারণ উল্লেখ করতে হবে।

২। প্রবেশপত্র এবং আই.ডি. কার্ড ছাড়া কোনো শিক্ষার্থী পরীক্ষার হলে প্রবেশ করবে না। যারা প্রবেশপত্র সংগ্রহ করেনি, তারা অফিসে যোগাযোগ করে অবশ্যই প্রবেশপত্র সংগ্রহ করবেন।

৩। পরীক্ষার হলে প্রবেশপত্র, কলম, পেন্সিল, রাবার, কাটার, জ্যামিতি বক্স, সাধারণ  ক্যালকুলেটর এবং প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র সাথে করে নিয়ে আসতে হবে। অন্য শিক্ষার্থীর কাছ থেকে পরীক্ষা উপকরণ নিয়ে ব্যবহার করা যাবে না। অনিবার্য কারনবশত কিছুর প্রয়োজন হলে পরীক্ষা হলে উপস্থিত উস্তাজ/উস্তাজাকে জানাতে হবে।

৪। কেজি – ৩য় শ্রেণি পর্যন্ত শিক্ষার্থীরা পরীক্ষায় পেন্সিল ব্যবহার করবে। বলপেন/কলম ব্যবহার করা যাবে না। ৪র্থ থেকে ১০ম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা বলপেন/কলম ব্যবহার করবে।

৫। অতিরিক্ত কাগজ (লুজ শিট)-এর প্রয়োজন হলে পরীক্ষার হলে উপস্থিত উস্তাজ/উস্তাজার কাছে তা চাইতে হবে। অতিরিক্ত কাগজের উপর অবশ্যই পরীক্ষার্থীর নাম ও শ্রেণি উল্লেখ করতে হবে।

৬। পরীক্ষার হলে কোনো ধরণের বই-খাতা, সাইন্টিফিক ক্যালকুলেটর (৯ম/১০ম শ্রেণি ব্যাতীত) বা অন্য যেকোনো ইলেক্ট্রনিক ডিভাইস আনা থেকে বিরত থাকতে হবে।

৭। কোনো শিক্ষার্থী দেরী করে পরীক্ষার হলে প্রবেশ করলে তাকে নির্ধারিত সময়ের অতিরিক্ত সময় দেওয়া হবে না।

৮। পরীক্ষা শুরু হওয়ার প্রথম ১ ঘন্টার মধ্যে কোনো শিক্ষার্থী টয়লেটে বা পানি পান করা থেকে বিরত থাকবে। বিশেষ প্রয়োজন বা অসুস্থ থাকলে পরীক্ষার হলে উপস্থিত উস্তাজ/উস্তাজাকে জানাতে হবে।

৯। মর্নিং শিফটের (মেয়ে) পরীক্ষা শেষে টিফিন গ্রহণ করে দুপুর ১২:২০ মিনিটের মধ্যে বিদ্যালয় প্রাঙ্গন ত্যাগ করবে।

১০। ডে শিফটের পরীক্ষার পূর্বে দুপুর ১২:৩০-এ যোহর-এর জামাত আদায় করা হবে। স্কুল চলাকালীন যেসব শিক্ষার্থী ৭ তলায় সলাত পড়তেন তারা ৭ তলায় এবং যারা নীচতলায় সলাত আদায় করতেন তারা নীচ তলায় যথারীতি সলাত আদায় করবেন।

১১। পরীক্ষার হলে যেকোনো ধরনের অসদুপায় অবলম্বন করা থেকে বিরত থাকতে হবে। এ ব্যাপারে সকল শিক্ষার্থী আল্লাহকে ভয় করবেন এবং মনে রাখবেন তিনি সবকিছু দেখেন। শিক্ষার্থীরা পরীক্ষার সময় সর্বোচ্চ তাকওয়ার পরিচয় দিবেন বলে আমরা আশা করি।

১২। প্রতিটি শিক্ষার্থী অবশ্যই পরিপূর্ণভাবে স্কুল ইউনিফর্ম পরে স্কুলে আসবেন।

১৩। পরীক্ষা চলাকালীন স্কুল মাঠ সম্পূর্ণ বন্ধ থাকবে (১২ জুন – ২৭ জুন ২০২২ পর্যন্ত)।

অধ্যক্ষ

এস.সি.ডি (মোহাম্মদপুর শাখা)

অর্ধ-বার্ষিক পরীক্ষা রুটিন

আসসালামু আলাইকুম,

আগামী ১২ জুন (রবিবার) থেকে কেজি-১০ম শ্রেণির অর্ধ-বার্ষিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে ইন-শা-আল্লাহ্‌। পরীক্ষার রুটিন নিচে সংযুক্ত করা হলো।

মাসিক হালাকা (হিফজ বিভাগ)

আসসালামু আলাইকুম,

আগামী শনিবার (১৪/০৫/২২) সকাল ১১:০০টায় হিফজ বিভাগের সকল শিক্ষার্থীদের জন্য একটি হালাকার আয়োজন করা হয়েছে। হালাকাটি পরিচালনা করবেন উস্তাজা নায়লা নুযহাত। উক্ত হালাকায় হিফজ বিভাগের সকল শিক্ষার্থীর উপস্থিত থাকা বাধ্যতামূলক।

হিফজ বিভাগের মেয়ে শিক্ষার্থীরা ৮ম তলায় R-1 নং রুমে এবং ছেলে শিক্ষার্থীরা ৭ম তলায় ৭০০ নং রুমে বসবে, ইন-শা-আল্লাহ।।

হিফজ বিভাগের সকল শিক্ষার্থীদের মা অথবা মহিলা অভিভাবকগণ বাসা থেকে অনলাইনে উক্ত হালাকায় অংশগ্রহণ করতে পারবে। তবে এক্ষেত্রে সতর্ক থাকতে হবে যেন কোনো পুরুষ উক্ত হালাকায় অংশগ্রহণ না করেন।

হালাকার অনলাইন লিংক:

Join Zoom Meeting
https://us06web.zoom.us/j/87464713937?pwd=Qy90djRXOE50RE1VenpZWlh0UWdsQT09

Meeting ID: 874 6471 3937
Passcode: 123

মা আসসালামাহ,
এস.সি.ডি এডমিন

এস.এস.সি ২০২২ মডেল টেস্ট

আসসালামু আলাইকুম, আগামী ২২/০৫/২২ (রবিবার) থেকে এস.এস.সি ২০২২ শিক্ষার্থীদের মডেল টেস্ট শুরু হচ্ছে ইন-শা-আল্লাহ্‌। পরীক্ষার দুপুর ১২.৩০ থেকে ২.৩০ পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হবে। মডেল টেস্ট বোর্ড পরীক্ষার সিলেবাস ও মানবণ্টন অনুযায়ী অনুষ্ঠিত হবে। পরীক্ষার রুটিন নিচে সংযোজন করা হলো:

SSC – 2022 Syllabus & Exam Routine

২০২২ সালের মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট পরীক্ষার সময়সূচি :

মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড কতৃক প্রকাশিত এস.এস.সি ২০২২ সালের পরীক্ষার্থীদের সংক্ষিপ্ত সিলেবাস:

রমাদান এ্যাসাইনমেন্ট – ১৪৪৩ হিজরি

COVID-19 Vaccine (2nd Dose)

১২-১৭ বছর বয়সী শিক্ষার্থীদের যারা ৮/১/২০২২ তারিখ থেকে ২৭/২/২০২২ইং তারিখের মধ্যে ১ম ডোজ ভ্যাকসিন গ্রহণ করেছে, তাদের ২য় ডোজ ভ্যাকসিন আগামী ২৭ মার্চ ২০২২-এ সকাল ৯.০০টা থেকে মোহাম্মদপুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে-এ দেওয়া হবে, ইন-শা-আল্লাহ। নির্ধারিত সময়ে ভ্যাকসিন দেওয়ার জন্য শিক্ষার্থীদের পূর্বে স্বাক্ষরিত রেজিস্ট্রেশান কার্ড-এর ০১ সেট ফটোকপিসহ উপস্থিত হওয়ার জন্য অনুরোধ করা হলো।

১ম ডোজ টিকার ক্ষেত্রে যে সমস্ত শিক্ষার্থীর টিকা রেজিস্ট্রেশন কার্ড রয়েছে তারা সেটি নিয়ে আসবেন। আর যে সমস্ত শিক্ষার্থীরা রেজিস্ট্রেশন করতে পারেনি তারা জন্ম নিবন্ধন সনদের ফটোকপি ও সংযুক্ত টিকা কার্ড ২টি সংগে নিয়ে আসবে।

উক্ত তারিখে স্কুলের নাম হিসেবে “মিশন ইন্টারন্যাশনাল কলেজ” উল্লেখ করতে হবে।

টিফিন সংক্রান্ত নোটিস

আসসালামু আলাইকুম,

এস.সি.ডি স্কুলের অভিভাবকগণ নিশ্চয়ই অবহিত আছেন যে, স্কুলের শিক্ষার্থীদের জন্য স্কুল থেকে টিফিনের ব্যবস্থা করা হয়। শিক্ষার্থীদের মধ্যে ভেদাভেদ সৃষ্টি না হওয়া এবং সমতা বজায় রাখতে আমরা স্কুলের বাইরে থেকে বা বাসা থেকে যেকোনো ধরনের টিফিন আনাকে নিরুৎসাহিত করি। 

সম্প্রতি আমরা দেখতে পাচ্ছি কিছু অভিভাবক শিক্ষার্থীর কাছে বাইরের টিফিন দিয়ে দিচ্ছেন। যা এস.সি.ডি স্কুলের নীতির সাথে সম্পূর্ণ সাংঘর্ষিক। তাই শিক্ষার্থীদের বাইরে থেকে টিফিন না দেওয়ার জন্য অভিভাবকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা যাচ্ছে।

স্কুলের গৃহীত সিদ্ধান্তসমূহ অনুসরণের মাধ্যমে আমাদের প্রচেষ্টাকে এগিয়ে নেওয়ার জন্য আল্লাহ সবাইকে উত্তম প্রতিদান দিন, আমীন।

মা আসসালামাহ,
এস.সি.ডি এ্যাডমিন